Breaking News

নারী ক্রিকেটে এই বৈষম্যের শেষ কোথায় ?

নারী ক্রিকেটে এই বৈষম্যের শেষ কোথায়?

মাসখানেক আগে বিসিসিআই ভারতীয় পুরুষ ক্রিকেটারদের বেতনও একই রকমভাবে প্রকাশ্যে এনেছিল। পুরুষ ক্রিকেটারদের চারটে ভাগে ভাগ করা হয়েছে।

Advertisement

A+, A, B এবং C, এবং তাঁরা যথাক্রমে ৭ কোটি, ৫ কোটি, ৩ কোটি এবং ১ কোটি টাকা উপার্জন করবেন বলে জানানো হয়েছে। এইবার সমস্যা হল, পুরুষ এবং মহিলা ক্রিকেটারদের বেতন যদি পাশাপাশি রাখা হয়, তাহলে বিরাটদের তুলনায় মিতালিরা যে অনেকটাই কম টাকা পাচ্ছেন, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই।

বিনোদন এবং ক্রীড়া এই দুটো ক্ষেত্রেই আমরা লিঙ্গভিত্তিক বেতন বৈষম্যটা বড্ড বেশি করে দেখতে পাই। এই বিষয়টি নিয়ে ইতিপূর্বেও বহুবার বিতর্ক তৈরি হয়েছে। এই তর্কাতর্কির পড়েও সঠিক ফলাফল আসে নি ক্রিকেটে। বেশ কয়েকটা পেশা আছে, যেখানে রেভিনিউ উৎপাদনের জন্য দর্শকদের ওপর নির্ভর করতে হয়।

Advertisement

সেইদিক থেকে বিচার করতে গেলে, অনেকেই একথা স্বীকার করে নিয়েছেন যে এই লিঙ্গভিত্তিক বেতন বৈষম্য যথেষ্ট যুক্তিগ্রাহ্য। যুক্তি এটাই যে একই পেশার ক্ষেত্রে পুরুষ এবং মহিলা যদি সমসংখ্যক দর্শক টানতে পারেন, তাহলে তাঁরাও সমান বেতনের ‘হকদার’ হবেন। বেশ কয়েকবছর আগে বিশ্বের অন্যতম সেরা টেনিস তারকা রাফায়েল নাদাল এই ব্যাপারটা নিয়ে মুখ খুলেছিলেন। তিনিও প্রায় এই একই চিন্তাধারা প্রকাশ করেন। তবে সেইসময় এই বাঁহাতি টেনিস তারকার মন্তব্যকে নারী বিরোধী মন্তব্য বলে কটাক্ষ করা হয়েছিল। কেননা নারীরাও তো দেশের জন্য অনেক বড় বড় সুনাম বয়ে আনছে আর সি সুনামের বাগীদার আপনিও হবেন কিন্ত নারীবাদী কথা বলেই যাবেন।

আসুন জেনে নেওয়া যাক, সেইসময় ঠিক কী বলেছিলেন এই স্প্যানিশ টেনিস তারকা: “এই তুলনাটা করাই উচিত নয়। মহিলা মডেলরা পুরুষদের তুলনায় অনেক বেশি টাকা রোজগার করেন। সেইসময় তো কেউ কিছু বলে না। কেন? কারণ ওদের অনুরাগীর সংখ্যা অনেকটাই বেশি। যদি আমরা টেনিসের দিকে তাকাই, তাহলে খুব স্পষ্টভাবে এটা দেখতে পাব যে যার খেলা দেখতে বেশি দর্শক আসে, তারাই বেশি অর্থ উপার্জন করে।

Advertisement

” নাদালের এই সাক্ষাৎকারটি ইতালিয়ান ম্যাগাজ়িন ইয়ো ডোনা’তে প্রকাশিত হয়েছিল। তবে সম্প্রতি আবারও এই বিতর্কটা মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে। গতবছর জানুয়ারি মাসে এই প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করেছিলেন ভারতীয় মহিলা ক্রিকেট দলের অন্যতম মারকুটে ব্যাটসম্যান স্মৃতি মান্ধানা। সাংবাদিকদের স্মৃতি বলেন, “আমাদের এটা বুঝতে হবে যে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড যে রেভিনিউটা অর্জন করে, তার সিংহভাগটাই আসে পুরুষদের ক্রিকেট থেকে। যেদিন থেকে মহিলা ক্রিকেটাররাও সমপরিমাণ রেভিনিউ এনে দেবে, সেইদিন আমিই সবার আগে এই বৈষম্যের বিরুদ্ধে লড়াই করব। তবে এইমুহূর্তে ব্যাপারটা নিয়ে কোনও কথাই বলব না।” সেইসঙ্গে তিনি আরও যোগ করেছিলেন, “আমার তো মনে হয় কোনও ভারতীয় মহিলা ক্রিকেটার এই ব্যাপারটা নিয়ে মাথা ঘামায় না।

আরো পড়ুনঃ টি-২০ বিশ্বকাপে পাক ক্রিকেটারদের ভিসার জটিলতা লোপ

Advertisement

কারণ এখন একমাত্র লক্ষ্য হল দেশের হয়ে ম্যাচ জয় করা। আরও বেশি দর্শক মাঠে নিয়ে আসা। আরও বেশি রেভিনিউ অর্জন করা। আপাতত এই লক্ষ্যের দিকেই আমরা তাকিয়ে রয়েছি। যদি সেটা হয়, তাহলে বাকি কাজগুলোও একের পর এক ঠিক হয়ে যাবে।” আসুন দেখে নেওয়া যাক, কোন ক্যাটেগরিতে কোন কোন ক্রিকেটার রয়েছেন

Category A:

৫০ লাখ টাকা ভারতীয় টি-২০ দলের অধিনায়ক হরমনপ্রীত কাউর, স্মৃতি মান্ধানা এবং পুনম যাদব। Category B: ৩০ লাখ টাকা মিতালি রাজ এবং ঝুলন গোস্বামীর সঙ্গে একই তালিকায় রয়েছেন দীপ্তি শর্মা, পুনম রাউত, রাজেশ্বরী গায়কোয়াড়, শেফালি বর্মা, রাধা যাদব, শিখা পাণ্ডে, তানিয়া ভাটিয়া এবং জেমিমা রডরিগজ়।

Category C: ১০ লাখ টাকা মানসী যোশী, অরুন্ধতী রেড্ডি, পূজা বস্ত্রকার, হারলিন দেওল, প্রিয়া পুনিয়া এবং রিচা ঘোষ। তবে মহিলা ক্রিকেট ম্যাচে যদি তারা তাদের খেলায় আশানূরুপ দর্শক ও ফলাফল নিয়ে আসতে পারে তাহলে তার ক্ষেত্রে অন্য বিষয় মাথায় আনা হবে এবং তাদের সেই যায়গায় যাও্যার জন্য যা কিছু করার প্রয়োজন হয় আমরা তাই করবো বলে জানিয়েছে ইন্ডিয়ান ক্রিকেট বোর্ড।

কমেন্ট বক্সে আপনার মতামত প্রদান করুন।

About Cricvive Desk

Cricvive is a sports media company that produces original video, audio, and written content for cricvive.com and other media partners, as well as the general public and news organizations.

Check Also

ইংল্যান্ড টি-টোয়েন্টি দলে ব্রাত্য, হঠাৎ IPL খেলার শখ হল জো রুটের

২০২৩ আইপিএল নিলামে অংশ নিতে চলেছেন জো রুট। এর আগে তিনি কখনও আইপিএল খেলেননি। ২৩ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.