Breaking News

থ্রিলার জয় পঞ্জাব কিংসের,অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসনের মহাকাব্যিক লড়াই

ব্যাটিং তান্ডব দেখল ক্রিকেট দুনিয়া আইপিএলের চতুর্থ ম্যাচে। দুই ক্যাপ্টেন ছিল মূল ভূমিকায়। আইপিএল যেন ফিরে পাচ্ছে নিজের স্বকিয়তা। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) চতুর্দশ আসরের চতুর্থ ম্যাচে পাঞ্জাব কিংসের কাছে ৪ রানে হেরে গেছে রাজস্থান রয়্যালস। আইপিএলের ইতিহাসে অধিনায়কত্বের অভিষেকে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েও দলের পরাজয় এড়াতে পারেননি রাজস্থানের স্যাঞ্জু স্যামসন

রান তাড়ার আরো অনেক ম্যাচ দেখা হয়েছে আইপিএলে কিন্তু এমন টান টান উত্তেজনা বিরল। আইপিএলের ইতিহাসে রান তাড়ার রেকর্ডে এটি হয়ত দ্বিতীয়, যদি না শেষদিকে মরিস ওমন ম্লান না থাকতেন। এখনকার রেকর্ডও রাজস্থানের। গত আসরে পাঞ্জাবের বিপক্ষেই (তখন নাম ছিল কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব) ২২৩ রান তাড়া করে প্রথম আসরের শিরোপাজয়ীরা।

Advertisement

অধিনায়ক যেন নেতৃত্বের মশাল জলাতে এসেছেন। মুম্বাইয়ে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ২২১ রান জড়ো করে পাঞ্জাব। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৯১ রান করেন অধিনায়ক লোকেশ রাহুল। মাত্র ৫০ বলের মোকাবেলায় তিনি হাঁকান ৭টি চার ও ৫টি ছক্কা।

ম্যাচের রঙ বদলালো বারংবার।এছাড়া ৬টি ছক্কা হাঁকানো দীপক হুদা ২৮ বলে ৬৪ ও ক্রিস গেইল ২৮ বলে ৪০ রান করেন। বাংলাদেশি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান ৪ ওভার বল করে বিলি করেন ৪৫ রান, ছিলেন উইকেটশূন্য। যদিও আম্পায়ারিংয়ের ভুল, রিভিউ না নেওয়া আর জস বাটলারের ক্যাচ হাতছাড়ার কারণে একাধিক উইকেট শিকার থেকে বঞ্চিত থাকতে হয় তাকে।

Advertisement

আরো পড়ুনঃ আক্রমণাত্মক রাহুলকে দেখা যাবে এবারের আই পি এলে

বোলার এমন তান্ডবের মাঝেও দেখিয়েছেন জলক।রাজস্থানের পক্ষে চেতন সাকারিয়া তিনটি ও ক্রিস মরিস দুটি উইকেট শিকার করেন। জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে রানের খাতা খোলার আগেই বেন স্টোকসকে হারায় রাজস্থান। এতে ক্রিজে আসেন সাঞ্জু। ১২ রান করে সাজঘরে ফেরেন আরেক ওপেনার মনন ভোহরা। জস বাটলার ১৩ বলে ২৫, শিভ ডুবে ১৫ বলে ২৩ ও রিয়ান পরাগ ১১ বলে ২৫ রান করে আউট হন।

যদি লেখা থাকে নসিবে তাহলে যে কাব্যিক ব্যাটিং তান্ডব ব্যার্থ হয়ে যায় তা হয়ত আজকের ম্যাচ না দেখলে বুঝা যেত না।তবে একপ্রান্ত আগলে রেখে মারকুটে ব্যাটিং চালিয়ে যান ৩৫ রানে জীবন পাওয়া সাঞ্জু। ক্যারিয়ারের তৃতীয় শতক পূর্ণ করেও তাণ্ডব থামেনি। তবে থেমেছে ইনিংসের শেষ বলে। শেষ বলে প্রয়োজন ছিল ৫ রান। ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনে দীপক হুদার হাতে তালুবন্দী হন। তখন দলীয় সংগ্রহ ২১৭, ৭ উইকেট হারিয়ে। অপর প্রান্তে অপরাজিত মরিস ৪ বল খেলেছেন, রান করেছেন মাত্র ২! ৬৩ বলে ১১৯ রান করা সাঞ্জু হাঁকান ১২টি চার ও ৭টি ছক্কা।

Advertisement

 

Advertisement

কমেন্ট বক্সে আপনার মতামত প্রদান করুন।

About Cricvive Desk

Cricvive is a sports media company that produces original video, audio, and written content for cricvive.com and other media partners, as well as the general public and news organizations.

Check Also

আগামী চার মাসে পাঁচ দেশের টি২০ লিগ, আমিরশাহিতে প্রথম দিনেই মাঠে নামবে কেকেআর

আগামী ডিসেম্বর থেকে মার্চ পর্যন্ত পাঁচটি দেশে হবে টি-টোয়েন্টি ফ্র্যাঞ্চাইজ়ি লিগ। সেগুলির অন্যতম সংযুক্ত আরব …

Leave a Reply

Your email address will not be published.