Breaking News
taijul-create-test-record-againest-pakistan

মোহাম্মদ রফিককে পেছনে ফেলে পাকিস্তানের বিপক্ষে রেকর্ড গড়লেন তাইজুল ইসলাম

পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট ম্যাচের তৃতীয় দিনের খেলা মোড় একাই ঘুরিয়ে দিয়েছে তাইজুল ইসলাম। ক্যারিয়ারের নবমবারের মত টেস্ট ক্রিকেটে পাঁচ উইকেটের দেখা পেয়েছেন তাইজুল ইসলাম। ১১৬ রানের বিনিময়ে তাইজুল তুলে নিয়েছেন সাত উইকেট। আর ৭ উইকেট তুলে নেয়ার মাধ্যমে মাধ্যমে পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারী বোলার হয়েছেন তাইজুল।

Advertisement

এতোদিন পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী বোলার ছিলেন মোহাম্মদ রফিক। তিনি পাকিস্তানের বিপক্ষে ৩টি ম্যাচ খেলে ১৭টি উইকেট নিয়েছিলেন। তাইজুল এখন রফিকের রেকর্ডে ভাগ বসালেন। তিনি পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলেছেন ৪টি ম্যাচ। এই চার ম্যাচে তিনি তুলে নিয়েছেন ১৯ উইকেট।

তৃতীয় দিনের প্রথম ওভার থেকে উইকেট তুলে নিতে থাকেন তাইজুল ইসলাম। গতকালের ১৪৬ রান নিয়ে আজ তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করে পাকিস্তানের দুই ওপেনার আবদুল্লাহ শফিক ও আবিদ আলী। দিনের শুরুতেই তাইজুল ইসলামের জোড়া শিকারে প্রাণ ফিরে পায় বাংলাদেশ।

Advertisement

সকালে দিনের শুরুর ওভারে তাইজুল ফেরান ৫২ রানে শফিক আর শূন্য রানে আজহার আলীকে। এরপর মেহেদী হাসানের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন বাবর আজম (১০)। থিতু হওয়ার আগে ফাওয়াদ আলমকে ৮ রানে ফেরান তাইজুল। সকালে ৪ উইকেট তুলে নিয়ে লাঞ্চ ব্রেকে যায় বাংলাদেশে।

লাঞ্চ ব্রেক থেকে ফিরেই উইকেট তুলে নেন এবাদত হোসেন। সাজঘরে পাঠান মোহাম্মদ রিজওয়ানকে। আউটসাইড অফের ফুল বল রিজওয়ানের পায়ে লাগে, জোরালো আবেদনে সাড়া দেন আম্পায়ার। রিভিউ নিতে গিয়েও আর সে পথে এগোননি রিজওয়ান। ৩৮ বলে ৫ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি।

Advertisement

তবে বাংলাদেশের জন্য গলার কাঁটা হয়ে ওঠেন আবেদ আলী। ‌ সেঞ্চুরি করেও ইনিংস বড় করছিলেন তিনি। তবে তাকে থামান তাইজুল ইসলাম। তাইজুলের ফুলিশ বল ব্যাট মিস করে লাগে আবিদের পায়ে। জোরালো আবেদনে সাড়া দেন আম্পায়ার। রিভিউ নেন আবিদ।

পরে দেখা যায় বল লেগ স্ট্যাম্প স্পর্শ করে বেরিয়ে যাচ্ছে। আম্পায়ার্স কল হওয়াতে শেষ পর্যন্ত সাজঘরে যেতে বাধ্য হন আবিদ। আউট হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ১৩৩ রান। ২৮২ বলে ১২টি চার ও ২টি ছয়ে এই রান করেন আবিদ।

Advertisement

এর পরেই হাসান আলীর উইকেট তুলে নিয়ে টেস্ট ক্রিকেট ক্যারিয়ারে নবমবারের মত ৫ উইকেটের দেখা পান তাইজুল ইসলাম। ৮ বলে ১২ রান করে সাজঘরে ফেরেন হাসান। এর পরেই ব্যক্তিগত দ্বিতীয় উইকেট তুলে নেন এবাদত হোসেন। সাজিদ খানকে বোল্ড করে সাজঘরে পাঠান এবাদত হোসেন।

আউটসাইড অফের লেন্থ বল ভেঙে দেয় সাজিদের উইকেট। ১২ বলে ৫ রান করেন সাজিদ। দলীয় ২৫৭ রানের মাথায় পাকিস্তানের নবম উইকেট তুলে নেন তাইজুল ইসলাম। নোমান আলীকে ৮ রানে এলবিডব্লুর ফাঁদে ফেলেন তাইজুল।

তবে শেষ উইকেটের বাংলাদেশকে ভুগিয়েছেন শাহীন শাহ আফ্রীদি এবং ফাহিম আশরাফ। তবে ফাহিম আশরাফকে ৩৮ রানের প্যাভিলিয়নে ফিরিয়ে ইনিংস শেষ করেন তাইজুল ইসলাম।

কমেন্ট বক্সে আপনার মতামত প্রদান করুন।

About Dipok Deb Nath

Check Also

আগামী চার মাসে পাঁচ দেশের টি২০ লিগ, আমিরশাহিতে প্রথম দিনেই মাঠে নামবে কেকেআর

আগামী ডিসেম্বর থেকে মার্চ পর্যন্ত পাঁচটি দেশে হবে টি-টোয়েন্টি ফ্র্যাঞ্চাইজ়ি লিগ। সেগুলির অন্যতম সংযুক্ত আরব …

Leave a Reply

Your email address will not be published.