Breaking News

ভারত-পাকিস্তানের দাপুটে জয়, আফগানিস্তানের হার

সোমবার (১৮ অক্টোবর) মূল পর্বের আট দলের মধ্যে চারটি প্রস্তুতি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ম্যাচগুলোতে যথাক্রমে জয় পেয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া, ভারত ও পাকিস্তান।

Advertisement

আবুধাবি ক্রিকেট ওভাল ২ এ আফগানিস্তান ৪১ রানের ব্যবধানে পরাজিত করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। আগে ব্যাট করে দক্ষিণ আফ্রিকা সংগ্রহ করে ৫ উইকেটে ১৪৫ রান। দলের পক্ষে ৪৮ রান করেন এইডেন মারক্রাম। তার ৩৫ বলের ইনিংসে ছিল দুইটি করে চার ও ছক্কা।

এছাড়া অধিনায়ক টেম্বা বাভুমা ৩৯ বলে ২১ রান, ডেভিড মিলার ১০ বলে ২০ রান, হেন্ড্রিক ফন ডার ডুসেন ১৭ বলে ২১ রান করেন। তবে ব্যর্থ হন কুইন্টন ডি কক। ৭ বলে ৭ রান করে মুজিব উর রহমানের বলে তার হাতেই ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন ডি কক।

Advertisement

আফগানিস্তানের পক্ষে মুজিব ২৪ রানের বিনিময়ে তিনটি উইকেট পান। একটি করে উইকেট পান মোহাম্মদ নবী ও নাভিন উল হক। রশিদ খান একাদশে থাকলেও বোলিং করেননি।

১৪৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে আফগানিস্তানের দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ শাহজাদ ও হযরতউল্লাহ জাজাই ০ রানে আউট হন। রহমতউল্লাহ গুরবাজ ১৪ বলে ১৯ রান করে বিপর্যয় সামাল দেওয়ার চেষ্টা করলেও করিম জানাত ৩১ বলে ১৬ রানের ধীরগতির ইনিংস খেলে সমীকরণ কঠিন করে ফেলেন।

Advertisement

শুরুর বিপর্যয় আর কাটিতে উঠতে পারেনি আফগানিস্তান। সম্পূর্ণ ২০ ওভার ব্যাট করে তারা ৮ উইকেটের বিনিময়ে করেন ১০৮ রান। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৪ রান (২৯ বল) আসে নবীর ব্যাট থেকে। গুলবাদিন নাইব করেন ২০ বলে ১৭ রান। ৩ বলে খেলে ০ রানে আউট হন রশিদ। ফলে দক্ষিণ আফ্রিকা পায় ৪১ রানের জয়।

একই মাঠে পরের ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড। টস হেরে আগে ব্যাট করতে নামা নিউজিল্যান্ড ভালো সূচনা পায় মার্টিন গাপটিল ও ড্যারিল মিচেলের ব্যাটে। ২০ বলে ৩০ রান করা গাপটিলকে শিকার করে এই জুটি ভাঙেন অ্যাডাম জাম্পা।

Advertisement

অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন ৩০ বলে ৩৭ রান করে, জিমি নিশাম ১৮ বলে ৩১ রান ও ডেভন কনওয়ে ১৪ বলে ১২ রান করেন। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে নিউজিল্যান্ড সংগ্রহ করে ১৫৮ রান। অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে কেন রিচার্ডসন তিনটি এবং জাম্পা দুইটি উইকেট নেন।

জবাব দিতে নেমে প্রথম বলেই টিম সাউদির শিকার হয়ে গোল্ডেন ডাক নিয়ে ফেরেন ডেভিড ওয়ার্নার। অ্যারন ফিঞ্চ ১৯ বলে ২৪ রান, মিচেল মার্শ ১৫ বলে ২৪ রান, স্টিভ স্মিথ ৩০ বলে ৩৫ রান, মার্কাস স্টয়নিসের ২৩ বলে ২৮ রানে জয়ের পথেই থাকে অস্ট্রেলিয়া।

দলকে জয়ের বন্দরে রেখে সাজঘরে ফেরেন অ্যাস্টন অ্যাগার। তিনি করেন ১৮ বলে ২৩ রান। জশ ইংলিস ও মিচেল স্টার্ক অস্ট্রেলিয়ার জয় নিশ্চিত করেন। ইংলিস ২ বলে ৮ রান ও স্টার্ক ৯ বলে ১৩ রানে অপরাজিত থাকেন। ১ বল হাতে রেখে ৩ উইকেটের জয় পায় অস্ট্রেলিয়া। কিউইদের পক্ষে তিনটি উইকেট পান মিচেল স্যান্টনার।

আরেক ম্যাচে আইসিসি ওভাল ১ এ মুখোমুখি হয় পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। টস জিতে ব্যাট করতে নামে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ক্যারিবিয়ান ব্যাটাররা স্বভাবসুলভ খেলতে পারেননি। ক্রিস গেইল ৩০ বলে ২০ রান, লেন্ডল সিমন্স ২৩ বলে ১৮ রান, শিমরন হেটমায়ার ২৪ বলে ২৮ রান করেন।

শেষদিকে কাইরন পোলার্ডের ১০ বলে ২৩ রানের ক্যামিওতে নির্ধারিত ২০ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সংগ্রহ করে ৭ উইকেটে ১৩০ রান। পাকিস্তানের পক্ষে দুইটি করে উইকেট পান শাহীন আফ্রিদি, হাসান আলি ও হারিস রউফ।

জবাবে শুরুতেই মোহাম্মদ রিজওয়ানকে হারালেও বাবর আজম ও ফখর জামানের ব্যাটে এই লক্ষ্য মামুলি বানিয়ে ফেলে পাকিস্তান। বাবর ৪১ বলে ৫০ রান করে বিদায় নেন। ফখর ২৪ বলে ৪৬ রানের ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন। শোয়েব মালিক খেলেন ১১ বলে অপরাজিত ১৪ রানের ইনিংস। পাকিস্তান পায় ৭ উইকেটের জয়। হেইডেন ওয়ালশ নেন দুইটি উইকেট।

একই মাঠে রাতের ম্যাচে মুখোমুখি হয় ভারত ও ইংল্যান্ড। টস হেরে ব্যাট করতে নামা ইংল্যান্ডের শুরুটা খুব একটা ভালো ছিল না। জেসন রয় ১৩ বলে ১৭ রান, জস বাটলার ১৩ বলে ১৮ রান ও ডেভিড মালান ১৮ বলে ১৮ রান করে বিদায় নেন।

জনি বেয়ারস্টো ৩৬ বলে ৪৯ রানের ইনিংস খেলে ইংল্যান্ডকে বড় সংগ্রহের পথে নিয়ে যান। তাকে সঙ্গ দিয়ে লিয়াম লিভিংস্টোন করেন ২০ বলে ৩০ রান। তারপর মঈন আলির টর্নেডো ইনিংসে বড় সংগ্রহ পায় ইংল্যান্ড। ৪ চার ও ২ ছক্কায় মঈন করেন ২০ বলে ৪৪ রান। ইংল্যান্ড করে ৫ উইকেটে ১৮৮ রান। ভারতের পক্ষে তিনটি উইকেট পান মোহাম্মদ শামি।

দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান লোকেশ রাহুল ও ঈশান কিষাণই ভারতের জয়ের ভিত গড়ে দিয়ে যান। দুর্দান্ত শুরু করা রাহুল ২৪ বলে ৫১ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে মার্ক উডের শিকার হন। রাহুলের ইনিংসে ছিল ৬টি চার ও ৩টি ছক্কা। ধীরগতিতে শুরু করা কিষাণ করেন ৪৬ বলে ৭০ রান। তার ইনিংসে ছিল ৭টি চার ও ৩টি ছক্কা।

ব্যর্থ হন বিরাট কোহলি। ১৩ বলে ১১ রান করে লিভিংস্টোনের শিকারে পরিণত হন। সূর্যকুমার যাদব ৯ বলে ৮ রান করে ডেভিড উইলির বলে আউট হন। রিশাভ পান্ট ও হার্দিক পান্ডিয়া ভারতের জয় নিশ্চিত করেন। ৬ বল হাতে রেখে ৭ উইকেটের জয় পায় ভারত। রিশাভ ১৪ বলে ২৯ ও হার্দিক ১০ বলে ১৬ রানে অপরাজিত থাকেন।

কমেন্ট বক্সে আপনার মতামত প্রদান করুন।

About Dipok Deb Nath

Check Also

দলের সবাইকে ছেড়ে একা ভারতে আসছেন অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটার, বিমানে চেপেই হিন্দিতে বার্তা

অবশেষে ভারতে আসার ভিসা পেলেন অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটার উসমান খোয়াজা। ভারতে আসার বিমানে বসে সে কথা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *