Breaking News

ঝড়ের সাক্ষী হলেন ধোনীসহ CSK টিম

ঝড়ের সাক্ষী হলেন ধোনীসহ CSK টিম

Advertisement

পৃথ্বি শ ও শিখর ধাওয়ান ম্যাচের রিপোর্টে লেখার জন্য কোনও বিশেষ উপাদান রাখেনি! শনিবার রাতে আরব সাগরের তীরে তাদের ব্যাটে যে ঝড় উঠেছে তা ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে দীর্ঘ সময়ের জন্য মনে থাকবে। প্রথম ম্যাচে দিল্লি ক্যাপিটালসের (ডিসি) দুই দুর্দান্ত ব্যাটসম্যানের সৌজন্যে রিকি পন্টিংয়ের দল চেন্নাই সুপার কিংসকে (সিএসকে) ৭ উইকেটে হারিয়েছে।

যেন রান জোড়ায় লুটপাটের খেলা চলছে জোড়ায়! চেন্নাইয়ের ১৮ রান তাড়া করতে দু’দলির দুই ওপেনার যে গতি দিয়েছিল তা দেখে নজর কেড়েছে। দুজনেই বাধ্যতামূলক পাওয়ার-প্লে (প্রথম overs ওভার) পুরো সুযোগ নিয়েছিল। ৭৫ রান যোগ হয়েছে। ১৩.৩ ওভারে ব্যাট করে পৃথ্বী-শিখর জুটি স্কোরবোর্ডে ১৩  রান করে। পৃথ্বী ৩৬ বলে ৭২ রানের ইনিংস খেলেন।
তিনি নিজের ইনিংসে ৯ টি বাউন্ডারি এবং ৩ টি ছক্কা রেখেছিলেন। ডোয়াইন ব্রাভোর কাটে মহিন আলির হাতে ধরা পড়েন তিনি। তবে জয়ের জন্য মঞ্চ প্রস্তুত করে পৃথ্বী ফিরলেন।
শেষ ৬ ওভারে ৫১ রানে জিততে দিল্লির ব্যাটসম্যানদের অভাব ছিল না। ধাওয়ান ক্রিজে ছিলেন না, অধিনায়ক পান্ত এসেছিলেন তিনে। তবে গাব্বারকে পথ দিয়ে কিছুটা পথ যেতে হবে এবং থামতে হয়েছিল জাতীয় সতীর্থ শারদুল ঠাকুরের সহায়তায় এলবিডাব্লু হন ধাওয়ান। তিনি ৫৪ বলে ৭৫ রান করে থামেন। বাঁহাতি ব্যাটসম্যান ১০ বাউন্ডারি এবং ২ ছক্কা মারেন। পান্থকে লাইন অতিক্রম করতে অ্যাসি অলরাউন্ডার মার্কাস স্টোইনিসের ভূমিকা ছিল। স্টোনিস ১৪ বলে শারদুলের বলে ফিরিয়েছিলেন। শেষ পর্যন্ত অধিনায়ক পান্থ ১৪ রান করে ফেরেন।
এভাবেই চলতে থাকে এই রুপ।ওয়াংখেড়ের চরিত্র ও আবহাওয়ার কথা ভেবেই দুই অধিনায়কই টস জিতে ফিল্ডিং করার কথা ভেবেছিলেন। কিন্তু পন্থেরভাগ্য সহায় দেয় এদিনের মেগা ম্যাচে। টস জেতেন পন্থ। এমএস ধোনির চেন্নাইকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান তিনি। প্রথমে ব্যাট করে চেন্নাই সাত উইকেটে তুলেছিল ১৮৮।
রুতুরাজ গায়কোয়াড় ও ফাফ দুপ্লেসির ওপেনিং জুটি এদিন ডাঁহা ফেল করে। সাত রানের মধ্যেই দুই ব্যাটসম্যান ফিরে যান। শুরুতেই জোড়া উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় চেন্নাই। দলের হাল ধরতে মাঠে নামেন মইন আলি ও সুরেশ রায়না। জুটি বেঁধে ৩৮ বলে ৫৩ রান তোলেন তাঁরা। অশ্বিনের বলে ধাওয়ানের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান মইন। ২৪ বলে ঝোড়ো ৩৪ রানের ইনিংস খেলা ব্রিটিশ অলরাউন্ডার ৪টি চার ও ২টি ৬ হাঁকান।
তারপরে সুরেশ রায়না অম্বাতি রায়ডুকে নিয়ে এগিয়ে গেলেন। তবে মিডল অর্ডারে রাইডু যে খেলা খেলেছিল, সে খেলা আজ খেলতে পারেনি তিনি। ১৬ বলে ২৩ রান করে আউট হন তিনি। রায়ডু ১৪ ওভারে ফিরে এসেছিলেন এবং রিনা মাত্র দুই ওভার পরে আউট হন। তবে বাঁ হাতি ব্যাটসম্যান আইপিএলে দুর্দান্ত এক হাফ সেঞ্চুরি করে ফিরে এসেছিলেন। ফর্মে থাকা রায়না ৩৬ বলে ৫৪ রান করে আউট হন। এই দিনটিতে তাঁর হাত থেকে ৩ টি চার এবং চারটি ছক্কা এসেছিল।
সাত নম্বরে ব্যাট করতে নামেন এম এস ধোনি তাঁর ভক্তদের কেন্দ্রবিন্দু। তবে মাহি মাত্র ২ বলে ক্রিজে ছিলেন। চেন্নাইয়ের অধিনায়ক আবেশ খানের কোনও রান ছাড়াই ক্লিন বোল্ড হয়ে গেলেন। রবীন্দ্র জাদেজা ২৬ এবং সাম করণ ৩৪ করে  শেষ অবধি লড়াই করে চেন্নাইয়ের স্কোরবোর্ডে ১৮৮ রান করেছিলেন।

এভাবেই ,ঝড়ের সাক্ষী হলেন ধোনীসহ CSK টিম

Advertisement

কমেন্ট বক্সে আপনার মতামত প্রদান করুন।

About Cricvive Desk

Cricvive is a sports media company that produces original video, audio, and written content for cricvive.com and other media partners, as well as the general public and news organizations.

Check Also

এই নিয়ে দ্বিতীয়বার আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচ টাই হলেও সুপার ওভারে নিষ্পত্তি হল না, আগের নজির কোনটি?

এই নিয়ে দ্বিতীয়বার কোনও আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচ টাই হল, অথচ সুপার ওভারে তার ফলাফল নির্ধারিত …

Leave a Reply

Your email address will not be published.