Breaking News
as-soon-as-pakistan-lost-it-was-as-if-mittal-india-was-incensed

‘ধর্মের কল বাতাসে নড়ে’, পাকিস্তান হারতেই যেন গায়ের জ্বালা মিটল ভারতের

অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে চলতি টি-২০ বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট দল। পাকিস্তানের বিদায়ে সবথেকে বেশি আনন্দ কাদের হচ্ছে, সেটা বোধহয় আর বলার অপেক্ষা রাখে না। কারণ এই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দলের কাছেই ২০২১ টি-২০ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে হারতে হয়েছিল ভারতকে। আজ পাকিস্তান হারার পর সেকারণেই তারা আনন্দে উচ্ছ্বসিত হয়ে উঠেছেন। তবে সবথেকে বেশি আনন্দ বোধহয় পেয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের সমর্থকেরা।

Advertisement

আসলে গ্রুপ পর্যায়ে ক্রমাগত চারটে ম্যাচ জেতার পরই পাকিস্তান ক্রিকেটারদের পা আর মাটিতে পড়ছিল না। পরিস্থিতি এতটাই হাতের বাইরে চলে যায় যে, সুপার ১২ পর্বের শেষ ম্যাচে পাকিস্তান যখন স্কটল্যান্ডের বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছিল, তখন রোহিত শর্মাকে অঙ্গভঙ্গি করে বিদ্রুপ করেছিলেন পাকিস্তান ক্রিকেট দলের পেসার শাহিন আফ্রিদি। সেমিফাইনালে যখন ম্যাথু ওয়েড আফ্রিদির পরপর তিনটে বলে টানা তিনটে ছক্কা হাকাঁলেন, তখন সেই বিদ্রুপের প্রসঙ্গ আবারও ফিরে এল। সেইসঙ্গে একজন নেট নাগরিক বললেন, ‘ধর্মের কল বাতাসে নড়ে।’

দুর্দান্ত ব্যাটিং করে পাকিস্তানের বেলুন আজ চুপসে দিল অস্ট্রেলিয়া। ম্যাচের ৩৯তম ওভারে কীভাবে রং বদলাতে হয়, সেটা পাক ক্রিকেট দলকে শিখিয়ে দিলেন দুই অজি মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। ৯৬ রানে অস্ট্রেলিয়ার যখন ৫ উইকেট পড়ে গিয়েছে, ঠিক সেইসময় ব্যাট করতে আসেন ওয়েড এবং স্টোয়েনিস।

Advertisement

সেইসময় জয়ের জন্য ক্যাঙারু ব্রিগেডের দরকার ছিল ৪৬ বলে ৮১ রান। তারপর তাঁদের তাণ্ডবলীলায় পাকিস্তানকে একেবারে উড়িয়ে দিল অজিরা। তবে এই টুর্নামেন্টের অন্যতম সেরা আবিষ্কার শাহিন শাহ আফ্রিদি। এছাড়া গতকাল পাকিস্তানের হয়ে চার উইকেট নেন শাদাব খান।

তবে অস্ট্রেলিয়ার কাছে পরাজয়ের পর পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজম এই পরাজয়ের জন্য তাঁরই দলের সতীর্থকে অভিযুক্তের কাঠগড়ায় তুললেন। জয়ের জন্য ১৭৭ রান তাড়া করতে নেমেছিল অস্ট্রেলিয়া। শেষ দু’ওভারে পাকিস্তানের দরকার ছিল ২২ রান। ঠিক সেইসময় শাহিন আফ্রিদির বলে ক্যাচ তুলেছিলেন ম্যাথিউ ওয়েড। কিন্তু, সেটা মিস করলেন হাসান আলি।

Advertisement

বাবরের কথায় এই ক্যাচটা ধরতে পারলে, বদলে যেত ম্যাচের রং। তিনি বললেন, ‘আজ ম্যাচের প্রথমার্ধটা যেভাবে শুরু করেছিলাম, তাতে যে টোটাল আমাদের টার্গেট ছিল, সেটা অর্জন করতে পেরেছি। যদি আমরা ওই ক্যাচটা (হাসান আলি) নিতে পারতাম, তাহলে গোটা ম্যাচের রংটাই একেবারে বদলে যেত। কিন্তু, আমরা যেভাবে এই টুর্নামেন্টটা খেলেছি, তাতে আমরা খুশি। অধিনায়ক হিসেবে আমি যথেষ্ট সন্তুষ্ট।’

Advertisement

কমেন্ট বক্সে আপনার মতামত প্রদান করুন।

About Dipok Deb Nath

Check Also

বাংলাদেশ – ভারত সিরিজ ‘ক্রিকেটাররা নিউজিল্যান্ড থেকে বাংলাদেশে যেতে পারলে কোচরা কেন নয়’

বিশ্বকাপ হতাশার পর নিউজিল্যান্ড সফরে বেশ কয়েকজন সিনিয়র ক্রিকেটারসহ কোচদের বিশ্রাম দিয়েছে বোর্ড অব কন্ট্রোল …

Leave a Reply

Your email address will not be published.