Breaking News

বাবরের ব্যাটে প্রত্যাবর্তনের মহাকাব্য লিখল পাকিস্তান

অধিকাংশ তারকা ক্রিকেটারই ছিল না অজিদের ডেয়ার, তবুও তুলনামূলক খর্ব শক্তির এই দলটার কাছে প্রথম ওয়ানডেতে পাত্তাই পায়নি স্বাগতিক পাকিস্তান। হেরেছিল বড় ব্যবধানেই। দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও ঝেঁকে বসে সেই ভয়টাই। তবে দলটার নাম যে আনপ্রেডিক্টেবল পাকিস্তান। আগের ম্যাচেই যেই কাজটা করে দেখাতে পারেনি বাবর আজমরা। সেই কাজটাই করে দেখায় দ্বিতীয় ওয়ানডেতে পাকিস্তান।

শুধু কি জয়? সেদিন রেকর্ড রান তাড়া করেই জয়ের অবিশ্বাস্য কীর্তি গড়ে বাবর আজমের দল। ফলে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে হয়ে দাঁড়ায় অঘোষিত ফাইনালে। সিরিজে ঘুরে দাঁড়িয়ে পাকিস্তান এবার ফিরে স্বরূপে। প্রথম ওয়ানডে হারার পরও দুর্দান্তভাবে ফিরে এসে সিরিজটাই জিতে নেয় স্বাগতিকরা। ফলে টেস্ট সিরিজ খোয়ালেও, ওয়ানডে সিরিজটা আর হাতছাড়া করতে দেয়নি বাবর আজম। দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে, পাকিস্তান অধিনায়ক তুলে নিয়েছেন টানা দুই সেঞ্চুরি। ম্যাচ সেরার সঙ্গে হয়েছে সিরিজ সেরাও।

লাহোরে এদিন বোলারদের সেট করে দেওয়া ২১১ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নামে পাকিস্তান। তবে শুরুটা এদিন ভালো হয়নি স্বাগতিকদের। দলীয় ২৪ রানের মাথায় ওপেনার ফখর জামানের উইকেট হারায় তাঁরা। এরপরেই শেষ! পাক ব্যাটারদের আর কোন উইকেটেই তুলতে পারেনি অজি বোলাররা। প্রথম দুই টেস্টেই দারুণ দুইটি সেঞ্চুরি হাঁকানো ইমাম-উল-হক এদিনও পেয়েছেন রানের দেখা।

দ্বিতীয় উইকেটে বাবরের সঙ্গে গড়েছেন দেড় শতাধিক রানের জোট। তুলে নিয়েছেন হাফ সেঞ্চুরি। অন্যদিকে বাবর টেনে পুনরাবৃত্তি করেছে দ্বিতীয় ওয়ানডের। দারুন ব্যাট করে দলকে জয় উপহার দেওয়ার সঙ্গে তুলে নিয়েছেন দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরিও। আর তাতেই প্রায় ১২ ওভার হাতে রেখেই ৯ উইকেটের বড় জয়ে সিরিজ জিতে নেয় স্বাগতিকরা। ১২ চারে ১১৫ বলে ১০৫ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন বাবর আজম। ১১ রানের জন্য সেঞ্চুরি করতে না পারলেও, ৬ চার ও ১ ছক্কায় ১০০ বলে ৮৯ রানে অপরাজিত থাকেন ইমাম-উল-হক।

এর আগে লাহোরে ব্যাট করতে নেমে শূন্য রানে ফিরেন দুই ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চ ও ট্রাভিস হেড। ল্যাবুশেন, স্টয়নিসরাও ফিরে যান দ্রুত। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় অস্ট্রেলিয়া। বাকিদের আসা যাওয়ার মিছিলে একপ্রান্ত আগলে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন অ্যালেক্স ক্যারি। ৬ চার ও ১ ছক্কায় ফিরেন ৫৫ রান করে। গত ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান বেন ম্যাকডারমেট ফিরেন ৩৪ রানে।

শেষ দিকে অ্যাবোটের ৪৯ ও ক্যামেরন গ্রিনের ৩৪ রানে ভর করে দলীয় দুইশো পার করে অজিরা। শেষ পর্যন্ত ৪১.১ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২১০ রানে গুটিয়ে যান সফরকারীরা। পাকিস্তানের পক্ষে তিনটি করে উইকেট শিকার করেন হ্যারিস রউফ ও ওয়াসিম জুনিয়র। শাহিন আফ্রিদির শিকার দুই উইকেট।

কমেন্ট বক্সে আপনার মতামত প্রদান করুন।

About Cricvive Desk

Cricvive is a sports media company that produces original video, audio, and written content for cricvive.com and other media partners, as well as the general public and news organizations.

Check Also

আমি যে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েছি, ধোনি সেখানকার সেরা ছাত্র : কার্তিক

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দিনেশ কার্তিকের পরে অভিষেক হয়েছিল মহেন্দ্র সিং ধোনির। কিন্তু চেন্নাই সুপার কিংসের অধিনায়ক ভারতীয় …

Leave a Reply

Your email address will not be published.