Breaking News

নয়া T20 লিগের ফোয়ারা সত্ত্বেও বাড়ল আন্তর্জাতিক ম্যাচ, ICC-র সূচিতে হাসি IPL-র

বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে নয়া টি-টোয়েন্টি লিগের ফোয়ারা। তারইমধ্যে নয়া ফিউচার ট্যুর প্রোগামে (এফটিপি) ম্যাচের সংখ্যা বাড়াল বিশ্ব ক্রিকেটের নিমায়ক সংস্থা (আইসিসি)। তাতে আইপিএলের মুখে হাসি চওড়া হবে বলে মত সংশ্লিষ্ট মহলের।

২০২৭ সালের এপ্রিল পর্যন্ত ১২ টি পূর্ণ সদস্যের দেশের সূচি (২০২৩-২০২৭) প্রকাশ করেছে আইসিসি। তাতে মোট ৭৭৭ টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ হবে। বর্তমান এফটিপিতে যে সংখ্যাটা ৬৯৪। সেইসঙ্গে দুটি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ, দুটি ৫০ ওভারের ক্রিকেট বিশ্বকাপ, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি এবং টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আছে। তার ফলে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে যে টি-টোয়েন্টি লিগ ফোয়ারা উঠেছে, তাতে কতজন প্রথমসারির তারকা সময় বের করতে পারবেন, তা নিয়ে ধন্দ তৈরি হয়েছে।

এমনিতে আইপিএল, বিগ ব্যাশ লিগ (বিবিএল), পাকিস্তান সুপার লিগ, ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ, দ্য হান্ড্রেডের মতো টি-টোয়েন্টি লিগ হয়। তারইমধ্যে সংযুক্ত আরব আমিরশাহি (UAE T20 League) এবং দক্ষিণ আফ্রিকায় টি-টোয়েন্টি লিগের (SA T20 League) প্রস্তুতি জোরকদমে চলছে। বিশেষত সংযুক্ত আরব আমিরশাহি টি-টোয়েন্টি লিগে যা নিয়ম এবং যে পরিমাণ টাকা ঢালা হচ্ছে, তাতে একাধিক চাপে আছে একাধিক দেশের বোর্ড। এমনকী ডেভিড ওয়ার্নার যাতে সংযুক্ত আরব আমিরশাহি টি-টোয়েন্টি লিগে না খেলে বিবিএলে খেলেন, সেজন্য প্রচুর টাকা দিতে হচ্ছে। আরও একাধিক খেলোয়াড়ও সেই পথে হাঁটতে পারেন বলে জল্পনা।

সেই পরিস্থিতিতে একাধিক রিপোর্ট অনুযায়ী, সংযুক্ত আরব আমিরশাহি এবং দক্ষিণ আফ্রিকার টি-টোয়েন্টি লিগ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন আইপিএলের কর্তারা। মুম্বই ইন্ডিয়ান্স, চেন্নাই সুপার কিংসের মতো ফ্র্যাঞ্চাইজি বিদেশি টি-টোয়েন্টি লিগে বিনিয়োগ করায় ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কর্তারা আইপিএলের ব্র্যান্ড ভ্যালু কমে যাওয়ার আশঙ্কায় ভুগছেন বলে ওই রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে। সেই পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বৃদ্ধি পাওয়ায় আইপিএলের কর্তাদের মুখে হাসি ফুটতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট মহলের মত।

২০২২ সালের সেপ্টেম্বর এবং অক্টোবর: ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে তিনটি টি-টোয়ন্টি খেলবে ভারত। তারপর দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে তিন ম্যাচের একদিনের সিরিজ এবং তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে।

২০২২ সালের নভেম্বর: নিউজিল্যান্ডে তিন ম্যাচের একদিনের সিরিজ এবং তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবেন রোহিত শর্মারা।

২০২২ সালের ডিসেম্বর: বাংলাদেশে যাবে টিম ইন্ডিয়া। দুটি টেস্ট এবং তিনটি একদিনের ম্যাচ খেলবেন রোহিতরা।

২০২৩ সালের জানুয়ারি: ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে।

২০২৩ সালের জানুয়ারি: ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবেন ঋষভ পন্তরা।

২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারি: ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে চার টেস্ট এবং তিন ম্যাচের একদিনের সিরিজ খেলবে।

২০২৩ সালের জুলাই: ওয়েস্ট ইন্ডিজে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলবে ভারত। দুটি টেস্ট, তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে খেলবেন রোহিতরা।

২০২৩ সালের সেপ্টেম্বর: ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার তিনটি একদিনের ম্যাচ খেলবে ভারত।

২০২৩ সালের নভেম্বর: ঘরের মাঠে পাঁচটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে ভারত।

২০২৩ সালের ডিসেম্বর: ২০২১ সালের স্মৃতি মোছার সুযোগ পাবে ভারত। দক্ষিণ আফ্রিকায় দুটি টেস্ট, তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে টিম ইন্ডিয়া।

২০২৪ সালের জানুয়ারি: ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে পাঁচ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে ভারত।

২০২৪ সালের জুলাই: তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে টিম ইন্ডিয়া।

২০২৪ সালের সেপ্টেম্বর: ঘরের মাঠে দুটি টেস্ট এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে ভারত।

২০২৪ সালের অক্টোবর: ঘরের মাঠে তিনটি টেস্ট খেলবে ভারত।

২০২৪ সালের নভেম্বর: অস্ট্রেলিয়ায় গিয়ে পাঁচ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে ভারত।

২০২৫ সালের জানুয়ারি: ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং পাঁচটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে টিম ইন্ডিয়া।

২০২৫ সালের জুন: ইংল্যান্ডে পাঁচ টেস্টের সিরিজ খেলবেন পন্তরা।

২০২৫ সালের অগস্ট: বাংলাদেশে তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে টিম ইন্ডিয়া।

২০২৫ সালের অক্টোবর: ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে দুটি টেস্ট খেলবে।

২০২৫ সালের অক্টোবর: অস্ট্রেলিয়ায় তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং পাঁচটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে টিম ইন্ডিয়া।

২০২৫ সালের অক্টোবর: ঘরের মাঠে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে দুটি টেস্ট, তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে টিম ইন্ডিয়া।

২০২৬ সালের জানুয়ারি: ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং পাঁচটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে টিম ইন্ডিয়া।

২০২৬ সালের জুন: ঘরের মাঠে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে একটি টেস্ট এবং তিনটি একদিনের ম্যাচ খেলবে।

২০২৬ সালের জুলাই: ইংল্যান্ডের তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং পাঁচটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে টিম ইন্ডিয়া।

২০২৬ সালের অগস্ট: শ্রীলঙ্কায় দুটি টেস্ট আছে।

২০২৬ সালের সেপ্টেম্বর: আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে দেশের বাইরে টি-টোয়েন্টি খেলবে ভারত।

২০২৬ সালের সেপ্টেম্বর: ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং পাঁচটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে টিম ইন্ডিয়া।

২০২৬ সালের অক্টোবর: নিউজিল্যান্ডে দুটি টেস্ট, তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং পাঁচটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে ভারত।

২০২৬ সালের ডিসেম্বর: ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে তিনটি একদিনের ম্যাচ এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে টিম ইন্ডিয়া।

২০২৭ সালের মার্চ: ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে পাঁচ ম্যাচের টেস্ট খেলবে ভারত।

কমেন্ট বক্সে আপনার মতামত প্রদান করুন।

About Dipok Deb Nath

Check Also

অবাক হয়েছি যেভাবে ব্যাটে লাগল, গত ১০ মাস ধরে মেরে খেলেছি- রোহিত

নাগপুরে ঘরের মাঠে চলতি টি-২০ সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল ভারত এবং অস্ট্রেলিয়া। প্রথম ম্যাচে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.